ডিআইজির কার্যালয় থেকে বাইক চুরি, ১৪ পুলিশ সদস্য বরখাস্ত

বরিশালের গৌরনদী ও উজিরপুর থানার চার কর্মকর্তাসহ ১৪ পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করারও নির্দেশ দেওয়া হয়। তবে জেলা পুলিশ সুপার কর্মস্থলে না থাকায় ওই ১৪ পুলিশ সদস্যকে আপাতত থানা থেকে পুলিশ লাইনে ক্লোজ করা হয়েছে।

বরিশাল রেঞ্জ পুলিশের ডিআইজি এসএম আকতারুজ্জামান রোবাবর (৩ জুলাই) ওই আদেশের কপিতে স্বাক্ষর করেছেন। তবে এ সংক্রান্ত কোনো আদেশের কপি বুধবার (৬ জুলাই) সকাল পর্যন্ত থানায় পৌঁছেনি বলে জানিয়েছেন গৌরনদী ও উজিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা (ওসি)।

তবে মঙ্গলবার (৫ জুলাই) রাতে ডিআইজি এসএম আকতারুজ্জামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, দায়িত্ব পালনে গাফিলতির ঘটনায় ১৪ পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করতে জেলা পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দেওয়া হয়।

পুলিশ লাইনে ক্লোজ করা পুলিশ সদস্যরা হলেন- গৌরনদী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. আব্দুল গফফার হোসেন, এসআই ছগির মিয়া, সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) সোহরাব হোসেন, কনস্টেবল মো. ইকবাল, কনস্টেবল মো. কামাল, কনস্টেবল আব্দুল হক রানা, কনস্টেবল মো. মুরছালিন, কনস্টেবল মো. নয়ন, কনস্টেবল অমৃত, কনস্টেবল মো. মেহেদী এবং উজিরপুর থানার এসআই জিয়াউল হায়দার, কনস্টেবল মো. রবিউল ইসলাম, কনস্টেবল সোহেল রানা ও কনস্টেবল ইমরান হোসেন।

গৌরনদী মডেল থানার এসআই মো. আ. গাফফার হোসেন, এসআই ছগির মিয়া, এএসআই সোহরাব হোসেন, কনস্টেবল মো. ইকবাল, মো. কামাল, মুরছালিন, নয়ন, অমৃত, মেহেদী, আ. হক রানা এবং উজিরপুর মডেল থানার এসআই মো. জিয়াউল হায়দার, কনস্টেবল রবিউল ইসলাম, মো. সোহেল রানা ও ইমরান হোসেন।

বরিশাল রেঞ্জ পুলিশের একটি সূত্র জানায়, বরিশাল নগরীর কাশিপুর রেঞ্জ পুলিশের ডিআইজির কার্যালয় থেকে ২ জুন ইয়ামাহা এফজেড ভি-২ মডেলের একটি মোটরসাইকেল চুরি হয়। মোটরসাইকেলটি ওই কার্যালয়ে কর্মরত এক পুলিশ কর্মকর্তার ছিল। এ ঘটনায় বরিশাল মেট্রোপলিটন এয়ারপোর্ট থানায় একটি চুরির মামলা হয়।

চোর শনাক্তে রেঞ্জ পুলিশের ডিআইজির কার্যালয়ের বাইরে থাকা সিসিটিভির ফুটেজ সংগ্রহ করে পুলিশ কর্মকর্তারা দেখতে পান দিনগত রাত ৩ টা ২০ মিনিটে অজ্ঞাত এক ব্যক্তি প্রবেশ করে গ্যারেজ থেকে মোটরসাইকেল চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে।

উজিরপুর ও গৌরনদীর মহাসড়কে বিভিন্ন জায়গায় স্থাপিত সিসিটিভির ফুটেজে তারা দেখতে পান মোটরসাইকেলটি নিয়ে বরিশাল-ঢাকা মহাসড়ক হয়ে উজিরপুর থানা এলাকায় প্রবেশকালীন চেকপোস্ট এবং পরে গৌরনদী থানা এলাকার চেকপোস্ট হয়ে ফরিদপুরের ভাঙ্গা এলাকার দিকে চলে যায়। রাতে টহল ডিউটি পালনে গাফিলতি করায় ওই ১৪ পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করে এবং তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

গৌরনদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আফজাল হোসেন মঙ্গলবার রাতে জাগো নিউজকে বলেন, ‘সাময়িক বরখাস্তের কোনো আদেশের কপি এখনো হাতে পৌঁছায়নি। তবে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশে আমার থানার ১০ সদস্যকে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে।’

উজিরপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মমিন উদ্দিন জাগো নিউজকে বলেন, ‘এ থানার চার সদস্যকে পুলিশ লাইনে যোগ দিতে জেলা পুলিশের কন্ট্রোল রুম থেকে জানানো হয়। তাদের বিষয়টি জানানো হয়। এরপর তারা মঙ্গলবার দুপুরেই পুলিশ লাইনে রিপোর্ট করে।’

জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) সুদীপ্ত সরকার জাগো নিউজকে বলেন, জেলা পুলিশ সুপার কর্মস্থলে না থাকায় রেঞ্জ ডিআইজি কার্যালয়ের ওই আদেশের কপি পেয়ে ১৪ জন পুলিশ সদস্যকে মঙ্গলবার থানা থেকে প্রত্যাহার করে জেলা পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। পুলিশ সুপার কর্মস্থলে ফিরলে ডিআইজি কার্যালয়ের নির্দেশ অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.