এবার জাহাঙ্গীরনগর ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বেলায়েত

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) পড়ার স্বপ্ন দেখতেন বেলায়েত শেখ (৫৫)। কিন্তু সেই স্বপ্ন আর পূরণ হলো না। ঢাবির ঢাবির ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেন বেলায়েত। কিন্তু সেই পরীক্ষায় সফলতা পাননি তিনি।

বেলায়েত শেখের ফল বিশ্লেষণে দেখা গেছে, তিনি ভর্তি পরীক্ষায় জিপিএসহ ২৬ দশমিক ০২ পেয়েছেন। এর মধ্যে এমসিকিউ অংশে ৮ পেয়েছেন। এর মধ্যে বাংলায় ২, ইংরেজিতে ২.৭৫ এবং সাধারণ জ্ঞান অংশে পেয়েছেন ৩.২৫। লিখিত অংশে কোনো নম্বর পাননি তিনি।

এদিকে ঢাবিতে স্বপ্ন পূরণ না হলেও থেমে যেতে রাজি নন বেলায়েত। আগামী ২৬ জুলাই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ‘এ’ ইউনিট, ২২ আগস্ট চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) ‘ডি’ ইউনিট, ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ‘সি’ ইউনিটে অনুষ্ঠিতব্য পরীক্ষায় অংশ নেবেন তিনি।

এ বিষয়ে বেলায়েত দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে জানান, আমি চেষ্টা করেছি, এখানে হয়নি। আমি কখনও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যাইনি, নতুন পরিবেশে গিয়ে একটু ভয়ও পেয়েছি। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দেবো। আমার ইচ্ছা, মৃত্যুর আগ পর্যন্ত আমি লেখাপড়া করবো। অর্থনৈতিক অবস্থা দুর্বল, রিকশা চালিয়ে বা হোটেলে কাজ করে আমি পড়ালেখার খরচ জোগাড় করবো।

বেলায়েতের স্ত্রী সখিনা আক্তার বলেন, আমার স্বামী ঢাবির ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে অনেক টেনশনে ছিলেন। রাতে আমরা শুয়ে পড়লে আমাদের যাতে কোনো সমস্যা না হয় তার জন্য তিনি বাড়ির সামনে তার অফিস কক্ষে বসে গভীর রাত পর্যন্ত লেখাপড়া করেন।

গাজীপুরের মাওনার বাসিন্দা বেলায়েত শেখ ১৯৮৩ সালে প্রথমবার মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিলেও টাকার অভাবে সে বছর নিবন্ধন করতে পারেননি। ১৯৮৮ সালে তিনি আবারও এসএসসি পরীক্ষা দেওয়ার চেষ্টা করেন কিন্তু সে বছর সারা দেশে বন্যার কারণে পরীক্ষা দিতে পারেননি।

এর কয়েক মাস পরে তিনি ফটোগ্রাফার হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। বর্তমানে তিনি ‘দৈনিক করতোয়া’ পত্রিকার গাজীপুরের শ্রীপুর প্রতিনিধি।

কর্মজীবন শুরুর পরে বেলায়েত আর পড়ালেখা করবেন না বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। ছোট ভাইকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করার স্বপ্নও থেকে যায় অধরা। বেলায়েত ২ ছেলে ও ১ মেয়ের জনক। তার মেয়ে রাজউক উত্তরা মডেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেলেও কলেজে যেতে আগ্রহী ছিল না। তার বড় ছেলেও পড়ালেখায় আগ্রহী না। তাই নিজে নেমে পড়লেন ভর্তি যুদ্ধে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দিয়ে ব্যর্থ হলেও এবার কার টার্গেট রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.