মামলা আর ডিভোর্সের প্রশ্নে ক্ষেপে গেলেন তমা মির্জা, বললেন…

ঢালিউডের অন্যতম সুন্দরী নায়িকা তমা মির্জা। ২০১৯ সালের ৯ মার্চ পারিবারিক আয়োজনে তার বাগদান হয় কানাডাপ্রবাসী বাংলাদেশি ব্যবসায়ী হিশাম চিশতীর সঙ্গে। একই বছরের ৭ মে তারা বিয়ে করেন। কিন্তু দাম্পত্য জীবনের দেড় বছরের মাথায় তাদের সংসারে বেজে ওঠে ভাঙনের সুর।

২০২০ সালের ৫ ডিসেম্বর রাজধানীর বাড্ডা থানায় হিশাম চিশতীকে প্রধান আসামি করে যৌতুক নেওয়া ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে মামলা করেন তমা মির্জা।

নারী ও শিশু নির্যাতন আইন এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা ওই মামলার এজাহারে যৌতুকের জন্য মারপিট করে জখম, ইলেকট্রনিক মাধ্যম ব্যবহার করে বেআইনি প্রবেশ, ছদ্মবেশ ধারণ করে ব্যক্তি ক্ষতিসাধনসহ ফেসবুক ও ম্যাসেঞ্জারে সম্মানহানিকর মন্তব্য পুশ করে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন, বিরক্ত, অপমান ও হুমকি প্রদানের কথা উল্লেখ করা হয়।

পরদিন একই থানায় তমা মির্জার বিরুদ্ধে পাল্টা হত্যাচেষ্টার মামলা করেন হিশাম চিশতীও। সেখানে তমাকে করা হয় এক নম্বর আসামি। আরও আসামি করা হয় নায়িকার বাবা-মা, ভাই এবং অজ্ঞাতপরিচয় আরও একজনকে। মামলাটি করার পরই কানাডায় উড়াল দেন হিশাম চিশতী।

এ ঘটনার সপ্তাহ দুয়েক পর তমা জানান, তিনি হিশাম চিশতীকে ডিভোর্স দিতে চলেছেন। সে সময় এই নায়িকা ঢাকাটাইমসকে বলেছিলেন, ‘আমার আইনজীবীকে বিবাহ বিচ্ছেদ সংক্রান্ত কাগজপত্র তৈরি করতে বলে দিয়েছি। নিজের ও পরিবারের সম্মানের কথা ভেবে এই সিদ্ধান্ত নিলাম।’

বছর খানেক পর গত বছরের ডিসেম্বরে হিশাম চিশতী গণমাধ্যমকে জানান, ২০২১ সালের ৭ সেপ্টেম্বর উকিলের মাধ্যমে তমাকে তিনি তালাকের নোটিশ পাঠিয়েছেন। আইন অনুযায়ী তিন মাসের মধ্যে সব সম্পর্ক শেষ হয়ে গেছে। তবে সে সময় তমা মির্জা দাবি করেন, তিনি কোনো নোটিশ পাননি।

তারকাদের ব্যক্তিজীবন নিয়ে অনুরাগীদের আগ্রহের শেষ নেই। সেই সূত্রেই যোগাযোগ করা হয় তমা মির্জার সঙ্গে। জানতে চাওয়া হয় তার মামলার আপডেট সম্পর্কে। ক্ষেপে গিয়ে তিনি ঢাকাটাইমস প্রতিবেদককে বলেন, ‘বাড্ডা থানায় ফোন করে জেনে নিন। জানা মতে, মামলাটা ক্লোজড হয়ে গেছে।’

এরপর ডিভোর্সের আপডেট জানতে চাইলে আরও ক্ষেপে যান নায়িকা। তিনি ঢাকাটাইমস প্রতিবেদককে পাল্টা প্রশ্ন করে বলেন, ‘আপনি কি আমার ব্যক্তিগত বিষয় জানার জন্য ফোন করেছেন? আপনার দুটি প্রশ্নই নেগেটিভ। কাজ করছি তার আপডেট বাদ দিয়ে দুই বছর আগের ঘটনার আপডেট জানা এত জরুরি কেন? আমি এ বিষয়ে কথা বলতে চাই না।’

পরে কাজের আপডেট জানতে চাইলে তমা মির্জা বলেন, ‘আমি মাত্র ঘুম থেকে উঠলাম, আপনি বিকালে ফোন করেন।’

Open photo

এরপর অভিনেত্রীর মামলার বিষয়ে জানতে কথা হয় বাড্ডা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদের সঙ্গে। তিনি ঢাকাটাইমসকে জানান, ‘তমা মির্জার বিরুদ্ধে হিশাম চিশতীর করা হত্যাচেষ্টা মামলাটির চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়ে দিয়েছে পুলিশ। মামলাটি ক্লোজড হয়ে গেছে।’

অন্যদিকে হিশাম চিশতীর বিরুদ্ধে করা তমা মির্জার যৌতুক ও হত্যাচেষ্টার মামলাটি সম্পর্কে ওসি আবুল কালাম আজাদ জানান, ‘সেটির ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য তমার ব্যবহৃত একটি মোবাইল ফোন পিবিআইয়ের কাছে পাঠানো হয়েছে। মামলাটি এখনো তদন্তাধীন।’

তমা মির্জার ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে চর্চার এখানেই শেষ নয়। হিশাম চিশতীর সঙ্গে সম্পর্কের ইতি টেনে এই নায়িকা দীর্ঘদিন ধরে চলচ্চিত্র নির্মাতা রায়হান রাফির সঙ্গে প্রেম করছেন বলে গুঞ্জন। তারা নাকি শিগগির বিয়েও করবেন। যদিও তমা এবং রাফি একে অপরকে ভালো বন্ধু বলে পরিচয় দেন।

২০০৯ সালে শাহীন সুমনের ‘মনে বড় কষ্ট’ সিনেমার মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিষেক হয় তমা মির্জার। পরবর্তীতে অনন্ত হীরার ‘ও আমার দেশের মাটি’তে অভিনয় করে আসেন আলোচনায়। ২০১৫ সালে শাহনেওয়াজ কাকলী পরিচালিত ‘নদীজন’ সিনেমায় পার্শ্বচরিত্রে অভিনয় করে লাভ করে ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার’।

তমা মির্জা অভিনীত অন্য সিনেমাগুলো হলো- ‘একবার বলো ভালোবাসি’, ‘মানিক রতন দুই ভাই’, ‘ইভটিজিং’, ‘তোমার মাঝে আমি’, ‘গেইম রিটার্নস’, ‘অহংকার’, ‘গ্রাস’ ও ‘গহীনের গান’। বর্তমানে নায়িকার হাতে আছে ‘মিশন আমেরিকা’ ও ‘ফ্রম বাংলাদেশ’সহ একাধিক সিনেমা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.