স্বামীকে নিয়ে খোশমেজাজে নায়িকা এমিয়া এমি

সম্প্রতি নতুন এক জীবনের পথে যাত্রা শুরু করেছেন চিত্রনায়িকা এমিয়া এমি। সেই যাত্রায় তার সঙ্গী হয়েছেন স্বামী ফাহেয়াজ শাহরুখ। গত রবিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর এক কাজী অফিসে গিয়ে বিয়ে করেছেন তারা। সেই বিয়ের সাক্ষী ছিলেন নবদম্পতির ঘনিষ্ঠ কয়েকজন বন্ধুবান্ধব।

বিয়ের পর স্বামী ফাহেয়াজ শাহরুখকে নিয়ে বেশ খোশমেজাজে রয়েছেন এমিয়া এমি। জীবনের সেরা সময় কাটাচ্ছেন নায়িকা। স্বামীকে নিয়ে ঢাকার ভেতরেই এখানে ওখানে বেড়াতে যাচ্ছেন, পছন্দের খাবার খাচ্ছেন, শপিং করছেন। বৈবাহিক জীবনটাকে চুটিয়ে উপভোগ করছেন ‘ডনগিরি’র নায়িকা।

ঢাকাটাইমসের সঙ্গে আলাপকালে এসব এমি নিজেই জানান। অভিনেত্রীর নতুন সংসার জীবনের সবে তিন দিন পার হয়েছে। কেমন মনে হচ্ছে স্বামী ফাহেয়াজ শাহরুখকে? তার সঙ্গে কি গোটা জীবনটা কাটানো যাবে? এমনই প্রশ্ন করা হয়েছিল এমিকে।

জবাবে এই নায়িকা বলেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ, আল্লাহ ভুল সময়ে সঠিক মানুষকে পাঠিয়ে দিয়েছেন আমার জন্য। ওকে (ফাহেয়াজ শাহরুখ) সঙ্গে নিয়ে ঠিক ১০০ বছর বাঁচতে চাই। আপনারা আমাদের জন্য দোয়া করবেন।’

এমি আরও জানান, পরিচয়ের মাত্র পাঁচ দিনের মাথায় তিনি ফাহেয়াজ শাহরুখকে বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন। অভিনেত্রী বলেন, ‘কমন ফ্রেন্ডের মাধ্যমে আমাদের পরিচয়। তাও মাত্র চার দিনের। পাঁচ দিনের মাথায় দুজনের মনে হলো, আমরা সারাজীবন একসঙ্গে থাকতে পারব। এক ঘণ্টার ডিসিশনে বিয়ে করেছি আমরা।’

ফাহেয়াজ শাহরুখের কোন গুণটা এত মুগ্ধ করল এমিকে, যে এত কম সময়ের পরিচয়ে জীবনসঙ্গী করে নিলেন? এমি বলেন, ‘ওর সবচেয়ে বড় গুণ, ও আমাকে সহজেই বুঝতে পারে। যেটা আগে কেউ পারেনি। আমিও ওকে বুঝতে পারি। একসঙ্গে জীবন কাটানোর জন্য একে অন্যকে বুঝতে পারা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’

আরও একবার দোয়া চেয়ে নায়িকা বলেন, ‘যে বিশ্বাস আর ভালোবাসা নিয়ে দাম্পত্য জীবন শুরু করেছি, সারাজীবন যেন এটা বজায় থাকে।’

এমির স্বামী ফাহেয়াজ শাহরুখ পেশায় একজন অ্যারোনটিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার। তার গ্রামের বাড়ি কুমিল্লা। তবে জন্ম ও বেড়ে ওঠা ঢাকায়। বিয়েটা তারা শুধুমাত্র বন্ধুবান্ধবদের উপস্থিতিতে করলেও খুব শিগগির বিবাহোত্তর সংবর্ধনার আয়োজন করে সবাইকে দাওয়াত করবেন বলে জানান এমি।

এই নায়িকার ক্যারিয়ার শুরু হয়েছিল মডেলিং দিয়ে। ২০১৭ সালে ‘আপন মানুষ’ ছবির মাধ্যমে শুরু করেন চলচ্চিত্রে যাত্রা। ২০১৯ সালে শাহ আলম মন্ডল পরিচালিত ‘ডনগিরি’ দিয়ে আসেন আলোচনায়। সেখানে এমির নায়ক ছিলেন বাপ্পি চৌধুরী।

তবও নানা কারণে অভিনয়ে অনিয়মিত এমি। এখন আবার প্রবেশ করলেন নতুন জীবনে। তার কি আবার অভিনয়ে নিয়মিত হওয়ার ইচ্ছা বা পরিকল্পনা আছে? এ প্রশ্নের জবাবে এমি জানান, ‘না, আমি আর মিডিয়ায় কাজ করব না। আমার স্বামী চায় না।’

শুধু এমি নন, বিয়ের পর মিডিয়া ছেড়েছেন এমন নজির বাংলাদেশে আরও আছে। নব্বইয়ের দশকে চিত্রনায়ক নাঈমকে বিয়ের পর অভিনয় ছেড়েছিলেন তখনকার জনপ্রিয় নায়িকা শাবনাজ। এছাড়া এ তালিকায় নায়িকা শাবনূর, সাহারা থেকে শুরু করে আছে আরও কয়েকটি নাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published.